ঈদে চাই বাহারি গহনা

শুধুহ নতুন পোশাক আর শাড়িতে বাঙালি নারীর ঈদের সাজ যেন পূর্ণ হয় না। তাই পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে বাহারি গয়নার খোঁজে এখন ইমিটেশন দুকানে কিশোরি, তরুনীসহ নানা বয়সী নারীদের ভিড়। আর ঈদকে সামনে রেখে বিক্রি বাড়াতে গয়নার দোকান গুলো ঝলমল করছে নানা ডিজাইন ও নানা রঙের গয়নায়।

হাতে রিনিঝিনি চুড়ি, কানে দুল, গলায় চেন ঐতিহ্যবাহি এইসব গয়নার সঙ্গে সৌন্দর্য বাড়াতে ফ্যাশান সচেতন নারীদে আরও চাই ফিঙ্গার রিং, ব্রেসলাট, চলার ছন্দা পায়েল। কেউ কেউ হীরার কানের টপস, নাক ফুল আর লকেটও কিনছেন। এইসব বিষয় মাথায় রেখে বাহারী গয়না রাখছেন বিক্রেতারাও।

বিয়ে থেকে শুরু করে যে কোনো উৎসবে বা জমকালো উনুষ্ঠানে মেয়েরা সোনার গয়না পরতে ভালবাসে। বর্তমানে সোনার গয়না ও সোনালী রং ছাড়াও হোয়াইট গোল্ডের চাহিদা বেড়েছে। বিভিন্ন রঙ্গের গয়না কিনার পরও হোয়াইট গোল্ডের চুড়ি কিংবা এক জোড়া কানের দুল কিনছে অনেকেই। হীরা কিংবা মুক্তর সঙ্গে ব্যবহার হচ্ছে হোয়াইট গোল্ড।

বর্তমানে সোনার গয়নার সঙ্গে সঙ্গে হীরার গহনাও বাঙ্গালি নারীর কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এটা অনেক টা অভিজাত্যের প্রতিক। তাই সোনার গয়নার পাশাপাশি হীরার গহনার প্রতি আজকাল তরুণীদের একটা বিশেষ ঝোঁক লক্ষ্য করা যায়।

হীরার গহনার মধ্যে ছোট ছোট নকশার গহনাগুলোই ক্রেতাদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে। আমাদের দেশে যেসব হীরা পাওয়া যায় সেগুলোর মধ্যো মূলত ভারত, সিঙ্গাপুর ও দুবাই থেকে আসে।

শরীরের একেকটি অঙ্গের জন্য বিভিন্ন গহনা রয়েছে। যেমন গলায় জড়াতে পারেন অর্ধহার, চন্দ্রহার,চারনরী, পাঁচনরি, সাতনরি,গোটহার প্রালম্বক, একাবলি, কণ্ঠী, মধ্যমণি, ফুলোহার, মতিহার, রশ্মিমালা, চেন, মালা, নেকলেস, লকেট, শেলি, হাঁসুলি ইত্যাদি। কানে পরতে পারেন কর্ণপালি, কণিকা, কর্ণদর্পণ, কর্ণপুর, ইয়াররিং, কর্ণমালা, কানবালা, ঝুমকা, টব, চৌদামি, বারবৌরি, দুল, মাকড়ি ইত্যাদি।

এছাড়া হাতের শোভা বাড়াবে চুড়ি, কঙ্কণ, বালা, আর্মলেট, বাউটি, ব্রেসলেট, বাহুবন্ধ, বাজুবন্ধ, পইছা, মানতাসা, প্রতিশর ইত্যাদি।

মাথায় পরুন মুকুট, তাজ, সিঁথিমোর, কিরীট, শেখর, শিরোমণি, টোপর, কলগা, মোর, মৌলি ইত্যাদি।

নাকে নথ, নোলক, নাকসোনা,নাকছবি, বেশর,টানা ইতাদ্যি দিতে পারেন। কোমরে জড়াতে পারেন কিঞ্ছিনি, কোমর বন্ধন ,কটীসূত্র, কটিবন্ধ, চন্দ্রহার, বিছা, মাখলা ইতাদ্যি।

আর পায়ে পরতে পারেন পায়েল, ঘুঙুর, পায়জোড়া, মল, গুঁরবাধ, আনোট, তোরা ইতাদ্যি ।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *